সাবেক প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের অভিশংসনের বিচার শুরু

বাংলা সময় ডেস্কঃ গত মাসে মার্কিন রাজধানীকে মারাত্মকভাবে আক্রমনাত্মক করে তোলাতে প্ররোচিত করার অভিযোগে ডোনাল্ড ট্রাম্পের ঐতিহাসিক অভিশংসনের দ্বিতীয় বিচারটি মঙ্গলবার থেকে শুরু হয়েছে।

গতকাল যুক্তরাস্ট্রের সিনেটে প্রথম রিপাবলিকান প্রাক্তন মার্কিন রাষ্ট্রপতির বিচারের ব্যবস্থা করা হয়েছিল। কার্যনির্বাহনের শুরুতে সভাপতিত্বরত ডেমোক্র্যাটিক সিনেটর প্যাট্রিক লেহী বলেছেন, “সিনেট অভিশংসনের আদালত হিসাবে আহবান করবে।”

ট্রাম্পকে গত মাসে ডেমোক্র্যাটিক-নেতৃত্বাধীন হাউস অফ রিপ্রেজেনটেটিভ দ্বারা অভিযুক্ত করা হয়েছিল। জানুয়ারিতে তার ভূমিকার জন্য জানুয়ারীতে তার সমর্থকদের একটি গ্রুপ ক্যাপিটালের বিভিন্ন স্থাপনায় হামলা চালিয়েছিল।

ট্রাম্প সেদিন ওয়াশিংটনে একটি সংকীর্ণ জনসভায় তার সমর্থকদের উদ্দেশ্যে জ্বালাময়ী বক্তব্য রেখেছিলেন। ৩ নভেম্বরে রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে তার পরাজয়ে, নির্বাচনে ব্যাপক জালিয়াতির অভিযোগ করেন ট্রাম্প এবং সমর্থকদের প্রশাসনের বিরুদ্ধে লড়াই করতে উত্সাহিত করেছিলেন।

মঙ্গলবার প্রতিরক্ষা আইনজীবীরা যুক্তি দেখান যে, কেবল একজন স্থায়ী রাষ্ট্রপতিই একটি অভিশংসনের বিচারের মুখোমুখি হতে পারেন।

তবে বেশিরভাগ আইনজীবি বিশেষজ্ঞ বলেছেন, বিশেষ করে মিশিগান স্টেট ইউনিভার্সিটির আইন বিষয়ক অধ্যাপক ব্রায়ান কাল্ট বলেন; কোনও কর্মকর্তা পদত্যাগ করার পরে এই বিচার হওয়া সংবিধানসম্মত। ব্রায়ান কাল্ট হলেন একজন শীর্ষস্থানীয় অভিশংসন পন্ডিত।

১০০ সদস্যের সিনেটে ট্রাম্পকে দোষী সাব্যস্ত করার জন্য যে দুই-তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করতে হবে কিন্তু ডেমোক্র্যাটরা তারা দেখতে পাচ্ছেন না। কারণ সেখানেও দুইভাগে বিভক্ত।

জানুয়ারীতে সেই আক্রমনে জনতা পুলিশকে আক্রমণ করেছিল। সেই কারণে ট্রাম্প নির্বাচনের ফলাফলকে চ্যালেঞ্জ জানাতে দুই মাস অতিবাহিত করার পরেও রাষ্ট্রপতি জো বিডেনের জয়ের আনুষ্ঠানিক প্রশংসাপত্রকে বাধাগ্রস্ত করেছিলেন এমনকি আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে সুরক্ষার জন্য ঝাঁকুনি পেতে হয়েছিল। সেই আক্রমনে একজন পুলিশ অফিসারসহ পাঁচজন মারা গিয়েছিল।

অবরোধের পরিপ্রেক্ষিতে রাজধানীর চারপাশে সশস্ত্র সুরক্ষা বাহিনী এবং বেড়া এবং রেজার তারের ঘেরের অসাধারণ সুরক্ষা নিয়ে এই বিচার অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

শেয়ার করুন