মালদ্বীপ প্রবাসীরা বিনা খরচে করোনা টীকা পাবেঃ আব্দুল্লা শহীদ

স্টাফ রিপোর্টারঃ বিশ্ব উষ্ণায়নের বিরূপ প্রতিক্রিয়ার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে বাংলাদেশ মালদ্বীপে তার সর্বোচ্চ সম্ভাব্য সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেবে। গণভবনে পুরুষ পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবদুল্লা শহীদ তার সাথে সাক্ষাত করলে শেখ হাসিনা এই আশ্বাস দেন।

বুধবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মালদ্বীপের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল্লাহ শহীদকে বলেছেন, “জলবায়ু ক্ষতিগ্রস্থ ফোরামের চেয়ারম্যান হিসাবে শেখ হাসিনা মালদ্বীপকে জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রতিক্রিয়ার মোকাবেলায় সর্বাত্মক সহায়তার আশ্বাস দিয়েছেন,” বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর সহকারী প্রেস সচিব এমএম এমরুল কায়াস।

শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ নিজস্ব প্রশমন ও অভিযোজন পরিকল্পনা তৈরি করেছে এবং জলবায়ু প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে লড়াই করতে সেগুলি বাস্তবায়ন করছে।

আবদুল্লাহ শহীদ যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণ করে মালদ্বীপে বসবাসরত অচিরাচরিত বাংলাদেশীদের বেশ কয়েকটিকে নিয়মিত করার জন্য আগ্রহ প্রকাশ করেছিলেন।

আব্দুল্লাহ শহীদ প্রধানমন্ত্রীকে অবহিত করেন যে মালদ্বীপে অবস্থানরত বাংলাদেশিরা কোভিড -১৯ এর বিরুদ্ধে নিখরচায় টিকা দেবেন।

রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে আলোচনাঃ
রোহিঙ্গা ইস্যু সম্পর্কে শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ এক মিলিয়নেরও বেশি রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দিয়েছে এবং জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত মায়ানমার নাগরিকদের একটি উল্লেখযোগ্য সংখ্যাকে এখন ভাসান চরে স্থানান্তরিত করা হচ্ছে।

তার সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডকে কেন্দ্র করে তিনি বলেছিলেন যে বাংলাদেশে কেউই ভূমিহীন ও গৃহহীন থাকবে না।

সমঝোতা স্মারকগুলিঃ
বাংলাদেশ ও মালদ্বীপের মধ্যে স্বাক্ষরিত দুটি সমঝোতা স্মারকের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী তার সফরের সময় দুটি নথি স্বাক্ষরের বিষয়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছিলেন।

প্রথম সমঝোতা স্মারকটি বাংলাদেশ থেকে মানবসম্পদ নিয়োগের জন্য একটি শক্ত কাঠামো সরবরাহ করছে এবং দ্বিতীয়টি মালদ্বীপের ফরেন সার্ভিস ইনস্টিটিউট এবং বাংলাদেশের ফরেন সার্ভিস একাডেমির মধ্যে দু’জনের বিদেশ প্রশিক্ষণ কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ বিকাশের বিষয়ে সহযোগিতা নিয়ে রয়েছে দেশ।

আবদুল্লা বিভিন্ন খাতে অভূতপূর্ব উন্নয়ন এবং সাফল্য অর্জনের জন্য প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বের তীব্র প্রশংসা করেছিলেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী কেবল বাংলাদেশ বা দক্ষিণ এশিয়া নয়, সারা বিশ্বেই গুরুত্বপূর্ণ নেতা।

বঙ্গবন্ধু
আবদুল্লা শহীদ বলেছেন, মালদ্বীপের রাষ্ট্রপতি ইব্রাহিম মোহাম্মদ সোলিহ মুজিব বোরশায় বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানানোর জন্য প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান।

তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কেবল বাংলাদেশের নয়, সমগ্র বিশ্বের জন্য এক মহান নেতা ছিলেন।

তিনি কোভিড -১৯ মহামারীর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে মালদ্বীপে মেডিকেল সহায়তা দেওয়ার জন্য বাংলাদেশের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন।

সোমবার মালদ্বীপের পররাষ্ট্রমন্ত্রী তার বাংলাদেশী সমকক্ষ ড। একে আবদুল মোমেনের আমন্ত্রণে বাংলাদেশে সরকারী সফরে সোমবার এখানে পৌঁছেছেন।

শেয়ার করুন