পুলিশ ভেরিফিকেসশন ডাকযোগে পাঠানোর নির্দেশঃ এনটিআরসিএ-এর

মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক নিয়োগে দেয়া তৃতীয় গণনিয়োগ বিজ্ঞপ্তির ফলাফলে প্রাথমিক সুপারিশপ্রাপ্তদের পুলিশ ভেরিফিকেশনের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ডাকযোগে পাঠানোর নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

সোমবার (৬ সেপ্টেম্বর) বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ) থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এ নির্দেশ দেয়া হয়।

এতে বলা হয়, করোনাভাইরাস দুর্যোগের সময় বিবেচনা করে ও প্রশাসনিক কাজের শৃঙ্খলা বজায় রাখার স্বার্থে এনটিআরসিএ কার্যালয়ে সরাসরি কোনো পুলিশ ভেরিফিকেশন ফরম গ্রহণ করা হবে না।

যে সব প্রার্থী পুলিশ ভেরিফিকেশন ফরম পাঠাননি, তাদেরকে যথাসময়ে শুধুমাত্র ডাকযোগে কাগজপত্র পাঠানোর অনুরোধ করা যাচ্ছে।

প্রসঙ্গত, গত ১৫ জুলাই মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে ৫৪ হাজার শিক্ষক নিয়োগের ফল ওয়েবসাইটে প্রকাশ করে এনটিআরসিএ। তবে ৫১ হাজার ৭৬১টি পদে সুপারিশ করার কথা থাকলেও সুপারিশ করা হয়েছে ৩৮ হাজার ২৮৬ জন প্রার্থীকে। এর মধ্যে এমপিওভুক্ত প্রতিষ্ঠানে ৩৪ হাজার ৬১০ জনকে এবং ননএমপিভুক্ত প্রতিষ্ঠানে ৩ হাজার ৬৭৬ জনকে সুপারিশ করা হয়েছে।

আর ৮ হাজার ৪৪৮টি পদে কোনো আবেদন না পাওয়ায় এবং ৬ হাজার ৭৭৭টি নারী কোটায় প্রার্থী না পাওয়ায় ১৫ হাজার ৩২৫টি পদে ফল দেয়নি এনটিআরসি।

চলতি বছরের ৩০ মার্চ তৃতীয় ধাপে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে ৫৪ হাজার ৩০৪ শিক্ষক নিয়োগে তৃতীয় গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে এনটিআরসিএ।

গণবিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, ৫৪ হাজার ৩০৪টি শূন্যপদের মধ্যে স্কুল ও কলেজ পর্যায়ে ৩১ হাজার ১০১টি পদ রয়েছে। এর মধ্যে এমপিওভুক্ত পদ ২৬ হাজার ৮৩৮টি। মাদ্রাসা ও কারিগরি প্রতিষ্ঠানে শূন্যপদ ২০ হাজার ৯৯৬টি। এর মধ্যে ১৯ হাজার ১৫৪টি এমপিওভুক্ত। আর ২ হাজার ২০৭টি এমপিও পদে রিট মামলায় অংশগ্রহণদের জন্য সংরক্ষিত রাখা হয়।

শেয়ার করুন